ad720-90

[🔥Windows Pro 1.0🔥] Auslogics BoostSpeed আপনার পিসিকে করে তুলুন ফাস্ট,ঠিক করুন র‍্যাম লিক, আপনার হার্ডডিস্ক আয়ুকে বাড়িয়ে দিন দিগুন। ডাউনলোড করুন প্রো ভার্সন আর সাথে আসে রিভিও


আসলে আজকে যেই সফটওয়্যার নিয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি তা মুটামুটি ফিমিলার একটি উইন্ডোস ব্যাসেড আপ্লিকেশন।  তবে সব চেয়ে কাজের কথা হল এই সফটওয়্যারটি মাইক্রোসফট এর একটি টিম ডেভলোপ করেছে, যে কারনে আপনার উইন্ডোস পিসির যাবতিয় খুটি নাটি পাবেন এই এপসে।  যাই হোক বরাবরের মত প্রবন্ধে ৩টি পার্ট হবে, ১ সফটওয়্যার পরিচিতি, এর ইতিহাস, এবং কি কি কাজে পারর্দশী।  ২ পার্টে থাকবে কিভাবে ডাউনলোড করেন।  ৩ পার্টে থাকবে কিভাবে ইনস্টল করবেন।  তো শুরু করা যাক।

Auslogics BoostSpeed মূলত উইন্ডোস পিসির টুইকার হিসেবে বানানো হয়েছে একদল মাইক্রোসফট টিম।  আর এই Auslogics টিমটির অবস্থান হচ্ছে অসট্রেলিয়াতে যারা মূলত এই সব মানে উইন্ডোস ব্যাসেড প্রোগ্রাম নিয়ে কাজ করে।  তাদের এই পদার্পন শুরু হয় ২০০৮ সালে এই Auslogics BoostSpeed দিয়ে শুরু করা হয়, সাথে আরও একটি সেম ক্যাটাগোরির সফটওয়্যার থাকে যাকে Auslogics Disk Defrag বলা হয় এও একটি অসাধারন সফটওয়্যার।  পরে একে নিয়ে একদিন লিখব।  আরও অনেক ইতিহাস আসে যা নিয়ে আর লিখতে মনে চাচ্ছে না মূল পার্টে চলে যাই।

এই সফটওয়্যারটি মুলত আপনার পিসির যাবতিয় ইউটিলিটির কাজ করবে, আপনার পিসির অন করা থেকে এর মনিটরিং শুরু হয়ে যায়।  এর সফটওয়্যার এর গুন গান করে শেষ করা যাবে না ।  আবার অনেকে হয়ত আসেন যারা এর সম্পর্কে যানেন বা ব্যবহারও করছেন।  তবে আজ কে আমি লেটেস্ট ভার্সন শেয়ার করতে যাচ্ছি।  তাই আপনারটা যদি অলড ভার্সন এর হয়ে থাকে তাহলে ডাউনলোড করতে ভুলবেন না।  তো চলুন দেখি কি কি কাজ করতে পারে ইনি ।  তার আগে একটা ফোট হয়ে যাক নাকি বলেন?

Auslogics BoostSpeed মূল ফিচারস গুলোঃ

আসলে ইনি এত পরিমানে কাজের যে, কি কি কাজ করতে পারে তা লিখতে কেমন যানি আলসেমি লাগছে, যাইহোক আমি মূল মূল ফিচারস গুলো নিয়ে আলোচনা করছি।

  • BoostSpeed: এটা হচ্ছে এমন একটি ফিচারস যা আপনার পিসিকে আগে স্ক্যান করবে তার পরে বের করবে কেন আপনার পিসি স্লো,হঠাট বন্ধ হয়ে যাওয়া, পিসি ল্যাক করা এই সব বিষয় তার পরে আপনি একটি ক্লিক করার মাধ্যমে সব রকমের প্রোবলেম ঠিক করে ফেলতে পারবেন এবং সাথে আপনার পিসির জাংক ফাইল, ইনভেলিড রেজিস্ট্রি ফিক্স, পিসি ডিফ্রাগমেশন করা সব করতে পারবেন।
  • Diagnoses your Windows system: এটি এমন এক ফিচারস যার মাধ্যমে আপনি আপনার পিসির উইন্ডোস এর যত প্রকার প্রোবলেম আসে, মানে আপনার সিস্টেম এর কথা বলছি সেই গুলোকে খুজে বের করবে এবং আপনার পারমিশনে ঠিক করবে
  • Cleans out junk files: প্রতিনিয়ত আপনার পিসি ব্যবহার করার ফলে আপনার পিসিতে যে টেম্পোরারি ফাইল বা ফোল্ডার হয়। যা আপনার পিসির বারতি জাগা দখল করে সেই গুলোকে পরিস্কার করবে।  খুব ভালো একটি সিস্টেম
  • Improves computer speed: সাধারন ভাবে আপনার পিসিতে কিছু সিস্টেম থাকে যার ফলে আপনার পিসি স্লো কাজ করতে পারে, যা সাধারনত র‍্যাম লিক এর কারনে হয়ে থাকে এবং পিসি দেরিতে ওপেন হওয়া কে ঠিক করতে পারবেন এই ফিচারটির মাধ্যমে
  • Protects your privacy: এটি খুব কাজের একটি ফিচারস আপনি যদি ইন্টারনেট ব্যবহারকারি হয়ে থাকেন তাহলে অনবরত আপনার আপনার আইপি, ঠিকানা, আপনার পরিচয় এই সব বিষয় হাতিয়ে নিচ্ছে আপনি যেই সব ওয়েবসাইট ভিসিট করেন তারা।  এই ফিচারসটির মাধ্যমে আপনি আপনার তথ্য সুরক্ষিত রাখতে পারবেন।
  • Automates system maintenance: এই ফিচারস আপনার পিসিকে আপনাথেকে টেক কেয়ার করবে, যদি কোথাও কোন প্রোবলেম দেখা দেয় যা খুব ছোট খাট তা এই সিস্টেম নিজে থেকে মেইনটেইন করবে
  • Guards smooth performance: এটি একটি চমৎকার ফিচারস, আপনার পিসি যদি কোন কারনে খুব র‍্যাম, সিপিউ, পাওয়ার লোড করতে থাকে।  তাহলে সাথে সাথে তা আপনাকে জানাবে এবং কি কারনে এমন হচ্ছে সেটাও দেখাবে।
  • এই ছিল মূল ফিচারস তা ছাড়াও আরও অনেক ফিচারস আসে যা লেখে শেষ করা যাবে না।  তাই নিজে ব্যবহার করে দেখুন না, তার পরেও নিচে একটা স্ক্রিনশোট দিচ্ছি দেখে বুঝে নিন কত ফিচারস এতে।


ডাউনলোড করুন ফুল ভার্সন

ডিরেক্ট ডাউনলোড লিঙ্কঃ  Download

ডিরেক্ট ডাউনলোড লিঙ্ক ২ঃ  Download

প্রিমিয়াম সোর্সঃ Website Page

  • নিয়মিত এই এপস এর প্রিমিয়াম ভার্সন আপডেট পেতে উপরে ওয়েবসাইট ভিসিট করতে পারেন।  🔔বা আপনি যদি ফেসবুক ব্যবহার কারি হয়ে থাকেন, তো নিয়মিত সব উইন্ডোস এর প্রিমিয়াম সফটওয়্যার ফ্রিতে ডাউনলোড করার জন্য আপডেট পেতে এখানে গিয়ে ম্যাসেজ করুন “Windows” লিখে এবং প্রতি সপ্তাহে কি কি সফটওয়্যার আপডেট হল বা নতুন কি কি সফটওয়্যার আসল তা আপনাকে মেসেজ করে জানানো হবে।  মিস করলে লস।  🔔

ডেভলোপার ওয়েবসাইটঃ Website


কিভাবে ইনস্টল করবেন

  1. উপরের ডাউনলোড লিঙ্ক থেকে থেকে সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করুন
  2. এবার Extract করুন Winrar বা 7zip দিয়ে।  যদি না থেকে এখান থেকে ডাউনলোড করে নিন
  3. এবার “Setup” ফোল্ডার গিয়ে সফটওয়্যারটি ইনস্টল/ওপেন করুন
  4. ইনস্টল শেষ হয়ে গেলে ভালো করে চেক করুন যাতে মাত্র ইনস্টল করা সফটওয়্যারটি যাতে ওপেন না হয়ে থাকে, যদি হয়ে ওপেন হয়ে থাকে তাহলে বন্ধ করে দিন।
  5. আপনার পিসির/কম্পিউটার যদি Anti-Virus থাকে, তাহলে সেটিকে কিছুক্ষনের জন্য বন্ধ করুন। কারন বেশির ভাগ Anti-Virus সফটওয়্যার এর ফুল ভার্সন করার প্রক্রিয়াকে Virus হিসেবে দেখে।
  6. এবার Crack ফোল্ডারে ঢুকুন এবার Crack নামে যে ফাইলটি(.rar) আসে সেটি Extract করুন Winrar বা 7zip দিয়ে
  7. এবার নতুন যে ফোল্ডার পাবেন তার ভিতরে যা কিছু থাকবে সব কপি করুন। এবং পেস্ট করুন সদ্য ইনস্টল করা সফটওয়্যার এর ইনস্টল করা ফোল্ডারে, যদি পেস্ট করার সময় “Replace the file in the destination” দেখায় তাহলে সেটিতে ক্লিক করুন।  ব্যাস হয়ে গেলো।

* কিভাবে খুজে পাবেন সদ্য ইনস্টল করা সফটওয়্যার এর ইনস্টল করা ফোল্ডার, মাত্র যে সফটওয়্যার ইনস্টল করলেন সেটি সিলেক্ট করুন এবং মাউসে রাইট বাটন ক্লিক করুন, দেখবেন যে লেখা আসে “Open File Location” এইটাতে ক্লিক করলে পেয়ে যাবেন সফটওয়্যার এর ইনস্টল করা ফোল্ডার।


আজ এই পর্যন্ত, যদি কোথাও কিছু বুঝতে বা করতে প্রোবলেম হয় জানাতে ভুলবেন না।  আর পোস্টি কেমন লাগল তা জানাতে ভুলবেন না ।

🔔নিয়মিত সব উইন্ডোস এর প্রিমিয়াম সফটওয়্যার ফ্রিতে ডাউনলোড করার জন্য আপডেট পেতে এখানে গিয়ে ম্যাসেজ করুন “Windows” লিখে এবং প্রতি সপ্তাহে কি কি সফটওয়্যার আপডেট হল বা নতুন কি কি সফটওয়্যার আসল তা আপনাকে মেসেজ করে জানানো হবে ।  🔔





সর্বপ্রথম প্রকাশিত

Sharing is caring!

Comments

So empty here ... leave a comment!

Leave a Reply

Sidebar